এডিটর্স পিকসখবরটপ স্টোরিজধর্মস্কটল্যান্ড

স্কটল্যান্ডে প্রথমবারের মত মুসলিম জাস্টিস সেক্রেটারী

মিজান রহমান, স্কটল্যান্ড এডিটর :
স্কটল্যান্ডে প্রথমবারের মত মুসলিম ও সংখ্যালঘু স¤প্রদায় থেকে কেবিনেট সেক্রেটারী হিসাবে নিয়োগ পেলেন হামজা ইউসাফ এমএসপি । জাস্টিস সেক্রেটারী ফর স্কটল্যান্ড হিসাবে আজ ৩রা জুলাই স্কটিশ কোর্ট অব সেশনে শপথ নিলেন হামজা । স্কটল্যান্ডের পুলিশ, আইন ও বিচার বিভাগের নির্বাহী দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে স্কটিশ ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টার্জন গত ২৬শে জুন হামজার নাম ঘোষনা করেন।

শপথ অনুস্টান শেষে পরিবারের সদস্যদের সাথে হামজা ইউসাফ (০৩/০৭/২০১৮)

পাকিস্তানী বংশোদ্ভুত হামজা ইউসাফ ২০১৬ সালে অনুষ্টিত স্কটিশ পার্লামেন্ট নির্বাচনে গ্লাসগো পোল্কশিল্ড আসন থেকে ২য় বারের মত এমএসপি নির্বাচিত হন। স্কটিশ ন্যাশন্যাল পার্টির তরুন এই নেতা গত দুই বছর যাবত স্কট্ল্যান্ডের ট্রান্সপোর্ট মিনিষ্টার হিসাবে গুরুত্বপুর্ন দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।
২০১১ সালে প্রথম বারের মত তিনি গ্লাসগো রিজিওন থেকে এমএসপি (মেম্বার অব স্কটিশ পার্লামেন্ট) নির্বাচিত হন। দুই বছর মেয়াদে মিনিস্টার ফর এক্সটারন্যাল এফেয়ারস এন্ড ইন্টারন্যাশন্যাল ডেভ্লাপমেন্ট হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। সবচেয়ে তরুন এবং এথনিক মাইনরিটির মিনিস্টার (জুনিওর) হিসাবে সবার নজর কাড়েন তিনি।

৩৩ বছর বয়স্ক হামজা ইউসাফের জন্ম ও বেড়ে ওঠা গ্লাসগো তে । তার মাইগ্রান্ট বাবা ১৯৬০ সালে পাকিস্তান থেকে ব্রিটেনে আগমন করেন।
গ্রামার স্কুলের ছাত্র হামজা গ্লাসগো ইউনিভার্সিটি থেকে পলিটিক্স এ মাস্টার্স সম্পন্ন করেন ২০০৭ সালে। এরপর বশির মালিক এমএসপি র পার্লামেন্টারি এসিসটেন্ট হিসাবে স্কটিশ পার্লামেন্টে শুরু হয় ক্যারিয়ার । ২০০৯ – ১০ সালে প্রাক্তন ফাস্ট মিনিষ্টার অ্যালেক্স স্যালমন্ড এর পার্লামেন্টারী এসিস্ট্যান্ট হিসাবে কাজ করেন হামজা। এমএসপি প্রার্থী হওয়ার আগ পর্যন্ত এসএসপি র হেডকোয়ার্টারে কমিউনিকেশন অফিসার ছিলেন তিনি।
চ্যারিটি সংস্থা ইসলামিক রিলিফ এর সাবেক ভলান্টিয়ার মিডিয়া অফিসার তরুন বয়স থেকেই নানা সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত।

উলে­খ্য, স্কটিশ পার্লামেন্টে ১২৯ জন এমএসপি র মধ্যে এথনিক মাইনরিটির এমএসপি রয়েছেন ২ জন । স্কটল্যান্ডের ৩২ টি কাউন্সিলে আছেন মাত্র ১৫ জন বিএমই কাউন্সিলার। হামজার এই নিয়োগ স্কটিশ মাইনরিটি কমিউনিটির জন্য একটি উজ্জল দৃষ্টান্ত। এর ফলে ভবিষ্যতে স্কটিশ মুল ধারার রাজনৈতিক কর্মকান্ডে সংখ্যালঘু স¤প্রদায়ের লোকজন আর ও বেশী যুক্ত হবেন এমনটাই মনে করেন সংশ্লিস্টরা।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close