ইংল্যান্ডএডিটর্স পিকসখবরটপ স্টোরিজ

লন্ডনকে ক্ষতি গুনতে হবে ৭০ হাজার কোটি পাউন্ড

ব্রেক্সিট বাস্তবায়নে ব্রিটেন থেকে অন্তত ৩৭ টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যবসা গুটিয়ে জার্মানি চলে গেলে লন্ডনকে ক্ষতি গুনতে হবে ৭০ হাজার কোটি পাউন্ড। একটি লবিং গ্রুপ বলছে ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের মধ্যে মোটামুটি এসব প্রতিষ্ঠান তাদের সম্পদ ও আর্থিক কার্যক্রম জার্মানিতে সরিয়ে নেবে। আগামী বছরের মার্চ নাগাদ ব্রিটেনের অনেক ব্যাংক ফ্রাঙ্কফুর্টকে তাদের গন্তব্যস্থল নির্ধারণ করেছে। এসব ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কেউ কেউ তা ইতিমধ্যে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়েছে। স্পুটনিক

এখন পর্যন্ত ব্রিটেন থেকে ৩০টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্রেক্সিটের কারণে তাদের ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিশ্চিত করেছে। বড় ধরনের ব্যাংক যেমন জেপি মরগ্যান, মরগ্যান স্ট্যানলি, গোল্ডম্যান স্যাক্স তাদের ভবিষ্যৎ বাণিজ্যি সম্প্রসারণ প্যারিস ও ডাবলিনের মত ইউরোপের শহরগুলোতেই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ব্রিটিশ ব্যাংক হিসেবে ক্রেডিট সুইস, স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড, লয়েডস, সিটিগ্রুপ এবং নোমুরা ব্রেক্সিটের পর ফ্রাঙ্কফুর্টকেই বাণিজ্যের কেন্দ্রস্থল হিসেবে বেছে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ফ্রাঙ্কফুর্ট মেইন ফিন্যান্সের এমডি হবার্টাস ভ্যাথ বলেন, আশা করছি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো সাড়ে ৭’শ থেকে ৮’শ বিলিয়ন ইউরোর সম্পদ লন্ডন থেকে ফ্রাঙ্কফুর্টে সরিয়ে নেবে। আগামী বছরের প্রথম প্রান্তিকেই এসব সম্পদের সিংহভাগ স্থানান্তর হয়ে যাবে।

ব্রেক্সিট পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় পড়তে হতে পারে এ ভয়ে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ব্যবসা লন্ডন থেকে সরিয়ে নেওয়ার উদ্যোগ নিচ্ছে। বহুজাতিক কোম্পানিগুলো ব্যবসা সংকটে পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ পাসপোর্টের অধিকার না থাকায় ইউরোপের অনেক ব্যবসায়ী আর সহজে ব্রিটেনে আসতে চাইবে না বা পারবে না। আর ব্যাংকগুলোর চলে যাওয়া মানেই তাদের বিনিয়োগ ও বাণিজ্য সমেত চলে যাওয়া।

গত মাসে ব্রিটেনের সিটি মিনিস্টার জন গ্লেন বলেন, ব্যাংক অব ইংল্যান্ড ধারণা করছে আগামী ২৯ মার্চ নাগাদ ৫ হাজার লোক চাকরি হারাতে পারে। কিন্তু ফ্রাঙ্কফুর্ট মেইন ফিন্যান্স এ সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ দাঁড়াবে।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close