আমাদের কমিউনিটি

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল কমিউনিটি ল্যাংগুয়েজ সার্ভিস বন্ধের উদ্যোগ

লন্ডনের বাংলাদেশী অধ্যুষিত কাউন্সিল টাওয়ার হ্যামলেটসে কমিউনিটি ল্যাংগুয়েজ সার্ভিসের মাধ্যমে ১৯৮২ সাল থেকে বাংলা ভাষাসহ চাইনিজ, মেরিডিয়ান, রাশিয়ান, লিথুনিয়া, আরবি এবং সোমালিয়ান ভাষা অর্থাৎ মাতৃভাষা শিখাতে শিশুদের ফ্রি সুযোগ সুবিধা চলে আসছিল। বিশেষ করে বাংলা ভাষা সেকেন্ডারী স্কুলে পর্যন্ত পড়ানোর সুযোগ ছিলো। ইতিমধ্যে শত শত শিক্ষার্থী জিসিএসই ও এ-লেভেল পরিক্ষায় অতিরিক্ত ভাষা হিসেবে বাংলায় পরিক্ষায় দিয়ে বেশ ভালো ফলাফল করেছে বহু শিক্ষার্থী। গত ৩৬ বছর ধরে চলে আসা সেই শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে হাজার হাজার বাংলাভাষী শিক্ষার্থীদের। বাজেট কাটের নামে ইতিমধ্যে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল কমিউনিটি ল্যাংগুয়েজ সার্ভিস বন্ধের উদ্যোগ নিয়েছে । আগামী ২০ ফেব্রুয়ারী এ ব্যাপারে ফুল কাউন্সিল মিটিংয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। কাউন্সিলের এ সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কমিউনিটির মানুষ।
গত ১ শুক্রবার পহেলা ফেব্রুয়ারি ২০১৯ । পূর্ব লন্ডনে লন্ডন এন্টারপ্রাইজ একাডেমিতে বাংলাদেশ টিচার্স এসোসিয়েশনের নেতৃত্বে টাওয়ার হ্যামলেটসের সমগ্র বিএমই সংগঠনগুলোকে নিয়ে ‘কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ’ এর বাজেট কর্তনের বিরুদ্ধে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ টিচার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ আবু হোসেন ও সঞ্চালনায় ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল বাসেত চৌধুরী। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মেয়র গোলাম মোর্তজা। তবে সভায় উপস্থিত থেকে কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের বক্তব্য শুনেন টাওয়ার হামলেটস এর এক্সেকিউটিভ মেয়র জন বিগস।
পরে তিনি তার বক্তব্যে কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কোন আশ্বাস না দিলেও বিষয়টি গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করা হবে বলে জানান। তিনি উপস্থিত মিডিয়া কর্মীদের প্রশ্নের জবাবে বলে, বিষয়টি খুবই জটিল, কাউন্সিল অবশ্যই কমিউনিটির মানুষের আহবান বিবেচনা করবে। এখনো সব শেষ হয়ে যায়নি।
সভার প্রারম্ভে সভাপতি মোঃ আবু হোসেন আসন্ন টাওয়ার হ্যামলেটসের কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ বন্ধ করে দেওয়ার জন্য বাজেট কর্তনের বিরুদ্ধে তীব্র বিরোধিতা করে বলেন। তিনি বলেন এই কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজে বাংলা, আরবি, স্পেনিশ, ম্যান্ডারিন, ক্যান্টনীস, উর্দু সহ ১০ টি ল্যাংগুয়েজ পড়ানো হয়ে থাকে।
কিন্তু রি মডেলিং এর নামে আগামী দুই বছরের মাথায় কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ এর সমস্ত বাজেট কর্তন করে সার্ভিস বন্ধ করে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ।
এই সার্ভিস বন্ধ হলে প্রায় দুই হাজার ছেলে মেয়েরা তাদের মাতৃভাষা শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে এবং প্রায় ৯০ জন শিক্ষক চাকুরিচ্যুত হবেন। সর্বোপরি প্রায় বেয়াল্লিশটি সংগঠন বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই সমস্ত সংগঠনগুলো নিজস্ব সংস্কৃতি ও ভাষার অস্থিত্ব রক্ষায় এক সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করে যাচ্ছিল ।

উপস্থিত সকল বক্তাগণ কমিউনিটির সকল শ্রেণীর মানুষকে দল-মত নির্বিশেষে এক হয়ে এর বিরুদ্ধে কাজ করে যাওয়ার জন্য আহ্বান করেন। সাথে সাথে সকল কাউন্সিলরদের প্রতি দৃঢ় ভাবে আহ্বান করা হয় তারা যদি এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করেন, আমরাও তাদেরকে পরিহার করবো আগামী নির্বাচনে। এবং তারা বাঙালি জাতির এক কলঙ্কময় ইতিহাসের রচয়িতা হিসাবে পরিগণিত হবেন।
বক্তারা সকল কাউন্সিলারদের আহবান করে বলেন কাউন্সিলের এই অন্যায় আমরা কখনোই মেনে নেব না তাই এটা বন্ধ করতেই হবে।
এবং আগামী ২০ শে ফেব্রুয়ারি কাউন্সিল অধিবেশনে এর বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে তাদের কে প্রমাণ করতে হবে যে তারা টাওয়ার হ্যামলেটসের বাসিন্দাদের পক্ষে কাজ করেন।

বর্তমান কাউন্সিলরদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কাউন্সিলর তারেক খান, পারু মিয়া, গ্যাব্রিয়েলা, কাহার চৌধুরী,ও মোহাম্মদ পাপ্পু।
অন্যান্য কমিউনিটির মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন গোলাম মোস্তফা চেয়ারম্যান উদীচী, বো বাংলা ফোরামের চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান, বাংলাদেশ টিচার্স এসোসিয়েশনের ট্রেজারার মিসবাহ কামাল, টার্লিং স্টেট এর চেয়ারম্যান জুনায়েদ আহমেদ সুন্দর, টাওয়ার হামলেটস কলেজের সাবেক লেকচারার রেহানা রহমান প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close