ফিচার

বদরুজ্জামান জামানে’র তিনটি কবিতা

বদরুজ্জামান জামান:

স্বঘোষিত চতুর কাক

স্বঘোষিত চতুর কাক নগরের বাশি পঁচা আবর্জনা
ভক্ষন শেষে রৌদ্রে হেলান দিয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তুলে,
দুই ঠোঁটে লেগে থাকা আবর্জনার দুর্গন্ধ নিয়ে
বাতাসের নিঃশ্বাসে লেপন করে কলঙ্ক কালিমা।

নিঃশ্বাস নিঃসৃত পাখিরা ধু-ধু মাঠের বাতাসে,
আকাশের নীলিমায় আসর সাজায় কলঙ্ক মুছতে,
চাঁদ-সূর্য-নক্ষত্র-জ্যোৎস্না বিলাসী মনে ।

উচ্ছিষ্ট ভক্ষণের উষ্ণ উচ্ছ্বাস আক্রান্ত স্বঘোষিত
চতুর কাক- কতটা অসুস্থের সীমা অতিক্রান্ত হলে
ময়ূরের নৃত্য সৌন্দর্যে নিজের চতুরতা জাহির করতে
নির্লজ্জ নগ্নতা আশ্রিত হয়ে তৃপ্তিতে দুর্গন্ধ ছড়ায় ।
……….

খাঁটি শুয়োর
.
ঘোড়ার আস্তাবলে, গোচারণ ভূমিতে- শুয়োরের
নগ্ন দৃশ্যে মায়ের ওলানে মুখ লুকায় গো বাছুর,
লোকালয় ছেড়ে যে ঘোড়া আস্তাবলে আশ্রিত ছিল
গরুর স্বভাব অর্জনে আজ সে খাঁটি শুয়োর ।

গরু, ঘোড়া আর শুয়োরের সাথে আমি যে মানুষের
পার্থক্যের অংক কষি তা একেবারে অযাচিত নয়।
আবর্জনায় বেড়ে উঠা কীটপতঙ্গ বিশুদ্ধতাকে
অশুদ্ধ ভাববে কিংবা খাপ খাইয়ে নেয়া সময় সাপেক্ষ।

মানুষ সময়কে ধারণ করে পরিপক্ক হয় প্রস্তুত হয়-
পশুত্ব গোছাতে কিংবা মানুষের স্বরূপ অর্জন করতে
আর আস্তাবল, চারণভূমি, আবর্জনা মাড়িয়েছে যারা
মানুষের সাথে দ্বিচারণ নীতিতে- আজ তারাই খাঁটি পশু।
…….

শুয়োরের পালে মানুষ
.
শুয়োরের পালে মানুষ দেখে ভাবছো ওরা কারা?
আমিও তাই তোমার মতো নয় যে ভাবনাহারা।
শুয়োরের ক্ষুধা মল মূত্রে নোংরা ডোবার জলে
শুয়োর আপন মাতৃ ভগ্নি সহবাসে ক্ষুধা সুধায় স্বভাব দোষে।

শুয়োর দেখে ঘৃণা করোনা।
ভাবো তুমি একজন মানুষ,
মানুষ হলে ধ্যানী হবে, মানুষ হলে জ্ঞানী হবে,
মানুষ হলে বোধের দুয়ার খুলবেই তুমি
দেখতে শুয়োর আর মানুষ কারা।
না হয় তুমি শুয়োর না হও, নিশ্চিত কর্ম সহযোগি।

স্বভাবকর্ম যারা ধর্মজ্ঞানে চর্চা করে
তারা নগ্নসুখে উল্লাসিত দহন জ্বালায় ।
কিছু মানুষ শুয়োর হবে ,
শুয়োর তো শুয়োরই আছে
তোমার কাছে আশেপাশে।

এবার তুমি মানুষ হলে প্রমাণ করো কর্মধ্যানে ধর্মজ্ঞানে
শুয়োরের পালে মানুষ কেন কিংবা ওরা কারা?
আমিও তাই তোমার মতো নয় যে ভাবনাহারা।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close