বিনোদন

সিলেট চলচ্চিত্র উৎসব শুরু

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদ এর আয়োজনে গতকাল মঙ্গলবার শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী তৃতীয় সিলেট চলচ্চিত্র উৎসব। স্বাধীন ধারার চলচ্চিত্র নির্মাণকে উৎসাহ দেয়ার লক্ষ্যে গত দু’বছর যাবত এ উৎসব আয়োজিত হচ্ছে।
গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈশাখী চত্বরে বেলুন উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ সায়েম উদ্দিন আহমেদ।
এছাড়া ও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের সিলেট রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি জয়দেব কুমার ভদ্র, চলচ্চিত্র নির্মাতা ও উৎসবের জুরি আশরাফ শিশির, ভারতীয় নির্মাতা অর্ণব মিদ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বদরুল ইসলাম শোয়েব, ভারতীয় সাংবাদিক সন্দীপ রায় চৌধুরী, সিলেট জেলা কালচারাল অফিসার অসিত বরণ দাশগুপ্ত, চলচ্চিত্র নির্মাতা স্বরুপ আনন্দ, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ড. মিঠু চৌধুরী, কৃষি প্রকৌশল ও কারগরি অনুষদের ডিন সানজিদা পারভীন রিতু, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদের সভাপতি মোনায়েম হোসেন, সহ সভাপতি উত্তম কুমার, পল্লব তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন শাওন।
উৎসব ও প্রদর্শনী বিষয়ক সম্পাদক ইফতেখার আহমেদ ফাগুনের সঞ্চালনায় অতিথিরা বলেন, সিলেট চলচ্চিত্র উৎসব স্বাধীনধারার তরুণ নির্মাতাদের জন্য একটা নতুন দুয়ার খুলেছে। এই উৎসব ইতিমধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। আগামীতে নতুন প্রজন্মের নির্মাতাদের স্বীকৃতি দিতে এই উৎসব ভূমিকা রাখবে। এছাড়াও রাজধানীর বাইরে এমন আন্তর্জাতিক উৎসব চলচ্চিত্রের দর্শকশ্রেণি তৈরি করতে পারবে।
উৎসবের উদ্বোধনীর পর সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের কনফারেন্স কক্ষে ‘চলচ্চিত্রে গল্প বলা’ নিয়ে আয়োজিত কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন নির্মাতা আশরাফ শিশির, অর্ণব মিদ্যা, স্বরুপ আনন্দ ও সাংবাদিক সন্দ¦ীপ রায় চৌধুরী।
বিকেল ৩টায় উদ্বোধনী চলচ্চিত্র হিসেবে প্রদর্শিত হয় অর্ণব মিদ্যা পরিচালিত ভারতীয় চলচ্চিত্র ‘অন্দরকাহিনী’। বিকেলে বেশ দর্শক সমাগম ঘটে উৎসবে।
আগত দর্শকরা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে জানান, সিলেটে এমন চলচ্চিত্র উৎসব আয়োজনের ফলে আমরা ভাল চলচ্চিত্রগুলো দেখতে পাচ্ছি।
আগত এক দর্শক জেবুননেছা রিনা জানান, আমি দু’দিনে উৎসবে সবগুলো চলচ্চিত্র উপভোগ করবো।
আয়োজক সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদ থেকে জানানো হয়, প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত চলবে চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। এবার একই সঙ্গে দু’টি ভেন্যুতে (বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় অডিটোরিয়াম ও কৃষি অনুষদের ৩য় তলায় কনফারেন্স রুম) চলছে এ প্রদর্শনী। উৎসব চলবে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত। প্রথম দু’দিন চলবে চলচ্চিত্র প্রদর্শনী ও তৃতীয় দিন থাকছে চলচ্চিত্র নিয়ে সেমিনার।
এছাড়া শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশন ও সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদের আয়োজনে উৎসব প্রাঙ্গণে রয়েছে শিশুদের জন্য আলোকচিত্র প্রদর্শনী ‘বায়োস্কোপ ৩’। অভিভাবকরা সকাল থেকে আলোকচিত্র দেখাতে তাদের শিশুদের নিয়ে আসছেন।
উল্লেখ্য, এবারের আসরে বিশ্বের ১১১টি দেশ থেকে স্বল্প ও পূর্ণদৈর্ঘ্য ৩০৩৬টি চলচ্চিত্র জমা পড়ে। যার মধ্যে থেকে বাছাইকৃত ৯৬টি স্বল্পদৈর্ঘ্য ও চারটি পূর্ণদৈর্ঘ্য মিলিয়ে মোট ১০০টি চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হবে। জুরি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন বাংলাদেশী চলচ্চিত্র নির্মাতা আশরাফ শিশির, অভিনেতা মনোজ কুমার, নির্মাতা মুক্তাদির ইবনে সালাম ও ভারতীয় চলচ্চিত্র সমালোচক সিদ্ধার্থ মাইতি। উৎসবের প্রধান পৃষ্ঠপোষকতায় রয়েছে বিপনীবিতান মাহা।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close