ফিচার

ইফতার নিয়ে আব্বার সাথে দোয়া

তাসলিমা খানম বীথি: ১.রমজান মাসের প্রথম দিন থেকে প্রতিদিন ইফতার সামনে নিয়ে আব্বা আমাদের নিয়ে দোয়া করেন। আর সেই দোয়া অনেকক্ষন চলতে থাকে। আজান হলে সেই দোয়া শেষ হয়। আমরা তখন ইফতার করি। মনের সমস্ত কথাগুলো মহান রাব্বুল আলামিনের কাছে বলতে পারলে নিজের অজান্তেই তখন প্রচন্ড এক শান্তি অনুভব করি। আব্বা যখন রমজানের শেষ দিকে ইতেকাফে মসজিদে চলে যান তখন আম্মা আমাদেরকে নিয়ে দোয়া করেন। প্রতি রমজানেই আমাদের ঘরে এভাবেই ইফতার সামনে নিয়ে দোয়া করা হয়। আব্বার জন্যই আমাদের সবার দোয়া পড়া অভ্যাস গড়ে ওঠেছে।
২. সারা দিন রোজা রাখার পর ইফতারের আগে ইফতারি সামনে নিয়ে দোয়া করলে সেই দোয়া আল্লাহ রাব্বুল আলামিন অবশ্যই কবুল করেন বলে মহানবী (সা.) হাদিসে বলেছেন। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) একটি হাদিস বর্ণনায় রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তিন ব্যক্তির দোয়া কবুল না করে ফিরিয়ে দেওয়া হয় না. ন্যায়বিচারক শাসনকর্তার দোয়া, খ. ইফতারের আগে রোজাদারের দোয়া এবং গ. মাজলুমের (নির্যাতিত ব্যক্তির) দোয়া।
সবশেষে বলব, যদি কারো পরিবারের ইফতার সামনে নিয়ে দোয়া না পড়ে থাকেন তাহলে রমজানের প্রথম দিন থেকেই শুরু করুন। আপনার জন্য হয়তো পরিবারের ছোট বড় সবার মধ্যে ইফতার সামনে নিয়ে দোয়া পড়া অভ্যাস গড়ে ওঠবে।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আরও দেখুন...

Close
Close