ধর্ম

যমজ চার বোন কোরআনের হাফেজ

ইসরাইলি আগ্রাসনের শিকার যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ ফিলিস্তিন। সর্বদা আতঙ্ক, বুলেট-বোমার আওয়াজ, স্বজন হারানোর বেদনা ও হাজারো অনিশ্চয়তার মুখে জীবন বাঁচানোর সংগ্রামে যাদের দিনরাত অতিবাহিত হয় সেই সমাজের ছোট্ট শিশুদের কীর্তি আলোচিত হয় একটু বেশিই। এমনই এক অনন্য কীর্তি গড়লেন ফিলিস্তিনের যমজ চার বোন। জীবন সংগ্রামের সঙ্গে সঙ্গে কোরআনে কারিম হেফজের (মুখস্থ) সংগ্রামেও জয়ী হয়েছেন তারা। এক সঙ্গে জন্মলাভকারী ফিলিস্তিনি চার বোন একসঙ্গে পবিত্র কোরআন হেফজ করে রচনা করলেন নতুন ইতিহাস।-ডেইলি বাংলাদেশ

ফিলিস্তিনের অধিবাসী ১২ বছর বয়সী দীনা, দীমা, সুজান এবং রাজান শানিতী নামে যমজ এই চার বোন পুরো কোরআন মুখস্থ করে অনন্য কীর্তি গড়েছেন। তারা ফিলিস্তিনের দক্ষিণাঞ্চলীয় জেরুজালেমের ‘উম্মুল তুবা’ নামক গ্রামে বসবাস করেন। তাদের বাবা যুদ্ধে পা হারিয়ে স্থানীয় বাজারে ফলের ব্যবসা করেন। মায়ের তত্ত্বাবধানে তারা এমন কীর্তি গড়েছেন। হাফেজ হওয়ার পর তাদেরকে বিশেষ সম্মাননাও জানানো হয়েছে। ওই সম্মাননা অনুষ্ঠানে সবার বড় বোন সুজান বলেন, ‘আমাদের কোনো ভাই নেই। আম্মার খুব ইচ্ছা ছিলো, আমরা যেন কোরআন মুখস্থ করি। তিনি প্রায় আমাদের শিক্ষককে বলতেন, আমার আর কিছু চাওয়ার নেই। ওরা কোরআনের হাফেজ হলে আমার কোনো দুঃখ থাকবে না। আজ আমরাও খুশি- আম্মাকে খুশি করতে পেরে।’

সম্মাননা অনুষ্ঠানে তারা উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী এ কথা জানার পর, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই চার বোনকে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। অনেকে তাদের উচ্চ শিক্ষার দায়িত্ব নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। স্থানীয় শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তারা ঘোষণা দিয়েছেন, এই চার বোনের শিক্ষার সব দায়িত্ব তারা বহন করবে।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close