সোনার বাংলাদেশ

মালনীছড়া পরিদর্শনে থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত

বাংলাদেশে নিযুক্ত থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত অরুনরাং ফতং হামফ্রেইস গতকাল সোমবার উপমহাদেশের প্রাচীনতম চা বাগান মালনীছাড়া পরিদর্শন করেন। এ সময় মালনীছড়া বাগানের সৌন্দর্যে তিনি অভিভূত হন। বেলা ১১টায় তিনি বাগান পরিদর্শনে গেলে মালনীছড়া টি এস্টেটের পরিচালক আব্দুল হাই তাকে স্বাগত জানান। বাগান পরিদর্শনে অভিভূত রাষ্ট্রদূত তার অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, শহরের নিকটেই সবুজে ঘেরা অনিন্দ্য সুন্দর চা বাগানটি কল্পনার মতোই মনে হয়। বড় বড় ছায়া বৃক্ষের নিচে সবুজ গালিচায় আলো ছাঁয়ার খেলা। মালনীছাড়ার এই প্রাকৃতিক দৃশ্য যেকোন মানুষের মন ছুঁয়ে যাবে। তিনি বলেন, পরিকল্পিত চা বাগানের একটি সুন্দর চিত্র মালনীছড়া। পরিপাটি চা বাগানের সাথে সুপারি, রাবার, আগরসহ বিভিন্ন ফলজ ও ঔষধি বৃক্ষের বাগান মনকে উৎফুল্ল করে। বাগানটির অদ্ভুত সুন্দরের মায়ায় যেকোন বিদেশী পড়বেন বলে তিনি মন্তব্য করেন।
রাষ্ট্রদূত অরুনরাং ফতং হামফ্রেইস চা বাগানে পৌঁছে প্রথমে বাগানের বাংলোতে পরিচালক আব্দুল হাইয়ের সাথে এক চা চক্রে মিলিত হন। তারা বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাগানের ব্যবস্থাপক মো. আমিনুল ইসলাম, সিনিয়র সহকারী ব্যবস্থাপক মামুন হোসেন চৌধুরী, সহকারী ব্যবস্থাপক আব্দুল আজিজ প্রমুখ। পরে তিনি বাগান পরিদর্শনে বের হন।
উল্লেখ্য, উপমহাদেশের প্রখ্যাত দানবীর ড. রাগীব আলীর মালিকানাধীন মালনীছড়া চা বাগান উপমহাদেশের সর্বপ্রথম চা বাগান। এটি ১৮৫৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। চা বাগানের বুক ভেদ করে চলে গেছে বিমানবন্দর সড়ক। আকাশপথে যারা সিলেটে আসেন তাদের প্রথমেই স্বাগত জানায় এই চা-বাগান।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close