প্রবাসে সফল বাঙালী

আটকে যাওয়া সাড়ে ১২ হাজার প্রবাসী ফিরতে চান কাতার

করোনা মহামারীতে দেশে এসে আটকে যাওয়া প্রবাসী বাংলাদেশিরা সংশ্লিষ্ট দেশগুলোয় ফিরতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। দীর্ঘদিন দেশে থাকার কারণে অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। ফলে জটিলতায় পড়েছেন তারা। সৌদি প্রবাসীরা দেশটিতে ফিরতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করেছেন। সৌদি প্রবাসীদের সংকট কাটতে না কাটতেই কাতার ফেরার আকুতি জানিয়েছেন ১২ হাজারের মতো কুয়েত প্রবাসী।

করোনার কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ রেখেছে কাতার। অন্যদিকে ইতালি ফিরতেও বিপাকে পড়েছেন প্রবাসীরা। নিষেধাজ্ঞার কারণে দেশটিতে যেতে পারছেন প্রবাসীরা। ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশিদের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ করেছে দেশটি।

গত ১১ অক্টোবর আটকেপড়া কাতার প্রবাসীরা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে। পররাষ্ট্র সচিবের মাধ্যমে পাঠানো এই স্মারকলিপিতে কাতার প্রবাসীরা সে দেশে ফেরার জন্য কূটনৈতিক উদ্যোগ নিতে অনুরোধ জানিয়েছেন।

কাতার প্রবাসীদের পক্ষে করা স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে আটকেপড়া সাড়ে ১২ হাজার (প্রাইভেট কোম্পানিতে কর্মরত) রেমিট্যান্স যোদ্ধারা রিএন্ট্রি পারমিট জটিলতায় কাতারে যেতে পারছেন না। অবিলম্বে কূটনৈতিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রিএন্ট্রি পারমিট সহজকরণের মাধ্যমে সে দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করার দাবি জানানো হয়েছে।

কাতার প্রবাসী মিরাজ হোসেন বলেন, করোনার কারণে প্রায় ১০ মাস ধরে সাড়ে ১২ হাজার কাতার প্রবাসী দেশে আটকা আছি। আর্থিক অনটনের মধ্যে পড়ে মানবেতর জীবনযাপন করছি। তাই সরকারের কাছে অনুরোধ করব আমাদের কাতার ফেরার ব্যবস্থার জন্য।

অন্যদিকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশিদের প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইতালি। এই সময়ের মধ্যে যেতে না পারলে অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। ফলে তাদের ফেরা নিয়ে এক ধরনের অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। গত মার্চে ইতালিতে করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ আকার নিলে অনেক প্রবাসী বাংলাদেশে ফিরে আসেন। এভাবে মে পর্যন্ত কয়েক হাজার বাংলাদেশি দেশে ফেরেন। এর পর করোনার প্রকোপ কিছুটা কমে গেলে কাতার ফিরতে শুরু করেন প্রবাসীরা।

কিন্তু সেখানে গিয়ে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়ে বাংলাদেশ। এদিকে ইতালি প্রবাসী শ্রমিকদের প্ল্যাটফরম ‘ইতালি হেল্প সেন্টার’ থেকে জানা গেছে, আটকেপড়াদের ফেরার বিষয়ে ঢাকার ইতালি রাষ্ট্রদূত আগামী ১৯ অক্টোবর পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হয়েছেন। ওই বৈঠকে হয়তো ইতিবাচক কিছু হতে পারে।

এর আগে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিসার মেয়াদ ও আকামা বৃদ্ধির দাবিতে রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেন সৌদি প্রবাসীরা। টিকিটের জন্য সৌদি এয়ারলাইন্সের অফিসের সামনে এক সপ্তাহ ধরে বিক্ষোভ করেন। এর পর সৌদি সরকার ভিসার মেয়াদ ও আকামা বৃদ্ধি করে। সমাধান হয় টিকিট সমস্যারও।

 

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close