ইংল্যান্ড

ইংল্যান্ডে ১০ দিনের মধ্যে টিকা বিতরণে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ

১০ দিনের মধ্যে করোনা ভাইরাসের টিকা বিতরণে প্রস্তুত থাকার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে ইংল্যান্ডের হাসপাতালগুলোকে। আগামী ৭ই ডিসেম্বরের মধ্যেই তারা ফাইজার/বায়োএনটেকের টিকা হাতে পেতে পারে বলে আভাস দিয়েছেন ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের (এনএইচএস) কর্মকর্তারা। টিকা হাতে পেলেই প্রথমে তা স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর প্রয়োগ করা হতে পারে বলে জানানো হয়েছে। সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে এ খবর দিয়েছে অনলাইন গার্ডিয়ান। এতে বলা হয়, এনএইচএসের শীর্ষ কর্মকর্তারা এবং ইংল্যান্ডের হাসপাতালগুলো প্রত্যাশা করছে নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনের কয়েকদিনের মধ্যে ফাইজার/বায়োএনটেকের উৎপাদিত টিকার প্রথম সরবরাহ তাদের হাতে চলে আসবে ৭ই ডিসেম্বর, সোমবার নাগাদ। বিভিন্ন

হাসপাতালের সূত্রগুলো বলেছেন, এনএইচএস ইংল্যান্ড বলেছে, তারা প্রত্যাশা করছে ৭,৮ অথবা ৯ই ডিসেম্বর নাগাদ তাদের হাতে চলে যাবে এই টিকা। প্রাথমিকভাবে এই টিকা ব্যবহার করা হবে শুধু স্বাস্থ্যকর্মীদের। এরপর কেয়ার হোমের বাসিন্দা এবং যাদের বয়স ৮০ বছরের কোটায় তাদেরকে দেয়া হবে টিকা।

কারণ, করোনায় রোগ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে সরকার এই দুটি গ্রুপকে সর্বাধিক অগ্রাধিকার দিয়েছে। কারণ, তাদের করোনায় মৃত্যুর ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। তবে কেয়ার সেক্টরের প্রধানরা সরকারের এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তারা বলেছেন, সরকারের এ পদক্ষেপকে দেখা হবে বিশ্বাসঘাতকতা হিসেবে। তবে সেপ্টেম্বরে জয়েন্ট কমিটি অন ভ্যাকেশন এন্ড ইমিউনাইজেশন (জেসিভিআই), সরকারের উপদেষ্টারা এ নিয়ে বৈঠক করেছেন। তাতে সিদ্ধান্ত হয়েছে কোন গ্রুপকে টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকারে রাখা হবে। তারাই সিদ্ধান্ত নেন কেয়ার হোমে থাকা বয়স্ক মানুষ এবং সেখানকার স্টাফদের অগ্রাধিকার দেয়া উচিত। দ্বিতীয় অগ্রাধিকারে রাখা হয় ৮০ বছরের বেশি যাদের বয়স তাদেরকে এবং স্বাস্থ্য ও সামাজিক সেবা দিয়ে থাকেন এমন সব মানুষকে। শুক্রবার এই নির্দেশনা আবার জারি করেছে এনএইচএস।

তবে ফাইজারের টিকা নিয়ে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে বিশেষজ্ঞদের। এতে যেসব উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে এবং যে তাপমাত্রায় তা রাখার কথা বলা হয়েছে, তাতে সীমিত সময়ের জন্য এটা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নেয়া যেতে পারে। এর ফলে স্বাস্থ্যসেবার স্টাফ, কেয়ার হোম এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রাইভেট বাসায় এই টিকা পৌঁছে দেয়া কঠিন হতে পারে। এ জন্য এনএইচএস নতুন করে চিন্তা করছে কিভাবে এই টিকা ব্যবহার করা যায়। এর অধীনে বেলজিয়ামের কারখানায় ফাইজারের টিকা উৎপাদনের পর সরাসরি তা নিয়ে আসা হবে বৃটেনে। সেখানকার স্টোরেজ থেকে সরাসরি পাঠিয়ে দেয়া হবে হাসপাতালে, সেখানেই প্রয়োগ করা হবে এই টিকা।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close