আমাদের কমিউনিটি

করোনা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে, সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করুন: মেয়র জন বিগস

টাওয়ার হ্যামলেটসের মেয়র জন বিগস বারার বাসিন্দাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, সরকারী ঘোষনা অনুযায়ি টাওয়ার হ্যামলেটস সহ গোটা লন্ডনে টিয়ার ফোর বা সর্বোচ্চ মাত্রার লকডাউন জারি করা হয়েছে। নতুন বৈশিষ্ট্যের করোনাভাইরাস যা অতি সহজেই ছড়িয়ে পড়ে এবং এ কারণে রাজধানীতে সংক্রমণের হার আশংকাজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষিতে প্রাদুর্ভাব রুখতে ২০ ডিসেম্বর থেকে নতুন ও অতিরিক্ত বিধিনিষেধের আওতায় আমরা প্রবেশ করেছি।

তিনি বলেন, ‘নিত্যপ্রয়োজনীয় বা অত্যাবশকীয় নয়, এমন সকল পণ্যের দোকান অবশ্যই বন্ধ রাখতে হবে। হেয়ারড্রেসার, নেইল বারস এর মতো ব্যক্তিগত পরিচর্যার দোকান, অভ্যন্তরীন জিম ও লেজার ফ্যাসিলিটিজগুলোও বন্ধ থাকবে। অত্যাবশকীয় না হলে লোকজনকে অবশ্যই অন্যত্র ভ্রমণ বা যাতায়াত থেকে বিরত থাকতে হবে এবং যেসকল ক্ষেত্রে সম্ভব ঘরে থেকে কাজ করতে হবে।’

মেয়র বলেন, ‘২৩ থেকে ২৭ ডিসেম্বর ভিন্ন ভিন্ন পরিবারের মধ্যকার মেশা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নতুন বিধিতে বলা হয়েছে, বাসিন্দারা অবশ্যই তাদের এলাকার বাইরে যাবেন না কিংবা নিজেদের পরিবার বা সাপোর্ট বাবলের বাইরের কারো সাথে মিশতে পারবেন না। প্রত্যেককে সুরক্ষিত রাখার স্বার্থে, বিশেষ করে বয়স্ক ও কিংবা শারিরীকভাবে দুর্বল লোকজনদের নিরাপদ রাখতে আমাদের সকলকে বিধিনিষেধগুলো অবশ্যই মেনে চলতে হবে।’

কাউন্সিল ও সরকারী ওয়েবসাইটে নতুন বিধিনিষেধগুলোর বিস্তারিত রয়েছে উল্লেখ করে মেয়র বলেন, তারপরও কয়েকটি বিষয় আমি এখানে উল্লেখ করছিঃ

ধর্মীয় সমাবেশের অনুমোদন থাকলেও অবশ্যই অন্যদের সাথে মেশা যাবে না এবং উপযুক্ত দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। কিন্তু এরপরও এটা মনে রাখতে হবে যে বাতাসে ড্রপলেটস্ বা জলীয় কনার মাধ্যমে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে, তাই নিজের এবং অন্যদের সার্বিক সুরক্ষার স্বার্থে ফেস মাস্ক বা মুখ ঢেকে রাখাটা উত্তম পন্থা।

এবং, আমরা সবাই ক্রিসমাস পিরিয়ড সম্পর্কে অবগত আছি, যদিও আপনি ক্রিশ্চিয়ান ধর্মীয় আচার উদযাপন না-ও করেন, তারপরও এই সময়টা সকলেই পরিবার পরিজনদের সাথে একত্রিত হয়ে কাটিয়ে থাকেন। কিন্তু এই ভাইরাসের সংক্রমণ আবার আশংকাজনকভাবে ছড়িয়ে পড়ার কারণে আমাদের সকলকেই মেলামেশার পরিকল্পনাকে ব্যাপকভাবে কাটছাট করতে হবে। আমাদের ‘বাবল’ বা বলয়ের বাইরে কারো সাথে না মেশা এবং তিনটি ‘বাবলের’ সাথে ৫ দিন মেশার পুর্ব পরিকল্পনাও সরকার প্রত্যাহার করে নিয়েছে।

তাই, এবারের ক্রিসমাস সম্পূর্ণ ভিন্ন রূপে উদযাপিত হবে। তবে আমি চাই, আপনি আপনার বন্ধু-বান্ধব এবং প্রতিবেশীদের প্রতি নজর রাখুন, কারণ হয়তো বর্তমান পরিস্থিতির কারণে তিনি সামাজিকভাবে বিচ্ছিন্ন হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। বন্ধুকে কল করুন, যদি পারেন তাহলে আপনি এবং অন্যজন কোন পার্ক কিংবা পায়ে হেঁেট সোশ্যালি ডিসটেন্স বা দূরত্ব বজায় রেখে দেখা করুন (শুধুমাত্র দুই জন দেখা করা যায়)। এবং সিঙ্গল বাবল বা একটি বলয় এখনো কার্যকর রয়েছে, তবে সর্বাবস্থায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করুন।

মেয়র বলেন, আমি জানি যে, এই অতিরিক্ত বিধিনিষেধগুলো আমাদের বাসিন্দা ও ব্যবসায়ি সম্প্রদায় উভয়ের জন্য বিপর্যকর, তবে এটা জারি করা হয়েছে আমাদের সকলের সুরক্ষার জন্যই। টেস্টিং অর্থাৎ কোভিড এর পরীক্ষার সুযোগ বাড়াতে এবং টাওয়ার হ্যামলেটসের জন্য পর্যাপ্ত অর্থনৈতিক সহায়তা নিশ্চিত করতে আমরা সরকারের সাথে অব্যাহতভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

টাওয়ার হ্যামটেসকে সুরক্ষিত রাখতে দয়া করে সকলকে নিজ নিজ দায়িত্বটুকু পালন করে যাওয়ার অনুরোধ জানিয়ে মেয়র বিগস বলেন, টেলিফোনে বন্ধু-পরিজন ও প্রতিবেশিদের খোঁজ খবর নিন। অনিশ্চিত সময়গুলো মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করতে পারে, তাই নিরাপদে থেকে একে অপরের দেখভাল করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close