ইংল্যান্ড

বিবিসি-র ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিন: চীনকে ইইউ

বিবিসি ওয়ার্ল্ড নিউজের ওপর থেকে সম্প্রচার নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে চীনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। শনিবার ইইউ-এর এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানানো হয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবদমাধ্যম অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস।

বেইজিং-এর এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্তকে মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং তথ্যের নাগাল পাওয়ার ক্ষেত্রে আরেকটি নিষেধাজ্ঞা হিসেবে আখ্যায়িত করেছে ইইউ।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিবিসি-র সম্প্রচার বন্ধের এই সিদ্ধান্ত চীনা সংবিধান এবং মানবাধিকারের সর্বজনীন ঘোষণা উভয়েরই লঙ্ঘন। তাই দেশটি যেন বিবিসি ওয়ার্ল্ড নিউজ-এর ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়।

২০২১ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি চীনের সম্প্রচার নিয়ন্ত্রক সংস্থার পক্ষ থেকে দেশটিতে বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসের সম্প্রচার বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। করোনাভাইরাস ও উইঘুর নির্যাতন ইস্যুতে বিবিসির করা প্রতিবেদনের সমালোচনা করছে বেইজিং।

যুক্তরাজ্যে ব্রিটিশ মিডিয়া রেগুলেটর অফকম চীনা গ্লোবাল টেলিভিশন নেটওয়ার্কের (সিজিটিএন) লাইসেন্স বাতিলের এক সপ্তাহের মাথায় চীনের পক্ষ থেকে দেশটিতে বিবিসি-র সম্প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

সিজিটিএনের বিরুদ্ধে আভিযোগ ছিল, গত বছর যুক্তরাজ্যের নাগরিক পিটার হামফ্রের জোরপূর্বক স্বীকারোক্তি সম্প্রচার করা হয়, যাতে ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং রেগুলেশনের নিয়ম ভঙ্গ করা হয়েছে।

চীনের রাষ্ট্রীয় চলচ্চিত্র, টিভি এবং রেডিও প্রশাসন তাদের সিদ্ধান্তের বিষয়ে বলেছে, চীন সম্পর্কে বিবিসি ওয়ার্ল্ড নিউজ সম্প্রচারের নীতিমালাগুলো ‘গুরুতরভাবে লঙ্ঘন’ করেছে। এর মধ্যে ‘খবরের সত্যতা ও নিরপেক্ষতা’ এবং ‘চীনের জাতীয় স্বার্থের ক্ষতি না করার’ নীতিমালাগুলো লঙ্ঘনের মতো বিষয়গুলোও রয়েছে।

বেইজিং বলছে, আরও এক বছর সম্প্রচার করার জন্য বিবিসি যে আবেদন করেছিল সেটা গ্রহণ করা হবে না। এ ঘটনায় বিবিসি এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘চীনের এমন সিদ্ধান্তে আমরা হতাশ। বিশ্বের সবচেয়ে বিশ্বস্ত আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি। সারা বিশ্ব থেকে নিরপেক্ষভাবে কোনও ভয় বা আনুকূল্য ছাড়া বিবিসি খবর প্রচার করে।’

যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব চীনের এই সিদ্ধান্তকে ‘অগ্রহণযোগ্যভাবে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সঙ্কুচিত করা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, চীনে মুক্ত গণমাধ্যমকে সঙ্কুচিত করার যে কাজ চলছে, এটা তারই অংশ।

বাণিজ্যিক ভিত্তিতে পরিচালিত বিবিসি ওয়ার্ল্ড টিভি চ্যানেল সারা বিশ্বে ইংরেজিতে খবর প্রচার করে। চীনে মূলত আন্তর্জাতিক হোটেল এবং কিছু কূটনৈতিক এলাকার মধ্যেই বিবিসি-র সম্প্রচার সীমাবদ্ধ। অর্থাৎ, চীনা জনগণের অধিকাংশই এটি দেখতে পান না। সূত্র: অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস, বিবিসি।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close