ইংল্যান্ড

৩৩ দেশ থেকে ব্রিটেনে যাত্রীদের হোটেল কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক

ব্রিটেনে উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ দেশ থেকে আসা যাত্রীদের হোটেল কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক হচ্ছে। ব্রিটিশ সরকার উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলো থেকে আসা যাত্রীদের জন্য হোটেল কোয়ারেন্টিন নিয়ম সোমবার থেকে বাধ্যতামূলক করছে।

দেশটিতে ছড়িয়ে পড়া নতুন ধরনের করোনা প্রতিরোধে এ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।নতুন নিয়ম অনুযায়ী সকল ব্রিটিশ নাগরিক ও স্থায়ী বাসিন্দা যারা নিষিদ্ধ ভ্রমণ তালিকায় থাকা ৩৩টি দেশ সফর শেষে দেশে ফিরবে তাদের সকলকে অনুমোদিত

ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসেবে পর্তুগাল, ব্রাজিল ও দক্ষিণ আফ্রিকাসহ ৩৩টি দেশের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। নতুন নিয়মের আওয়তায়, এসব দেশ থেকে আসা ব্রিটিশ নাগরিক ও যুক্তরাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দাদের দেশে ফেরত আসার পর অনুমোদিত হোটেলে ১০ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে এবং একাধিকবার করোনাভাইরাস পরীক্ষা করাতে হবে।

যুক্তরাজ্যে ভ্রমণের আগে ১০ দিনের মধ্যে লাল তালিকার কোনো দেশে অবস্থান করলে সেই তথ্য যদি কোনো যাত্রী গোপন করে তাহলে তাকে ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড দেয়া হতে পারে। তবে অতিরিক্ত কঠোরতার অভিযোগে লকডাউনের এই নতুন আইন নিয়ে সমালোচনা চলছে।

সরকার জানিয়েছে, যুক্তরাজ্যের বিমানবন্দরগুলোর কাছাকাছি অবস্থানের ১৬টি হোটেলের সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে। এর ফলে কোয়ারেন্টাইনের জন্য পাঁচ হাজার রুম নিশ্চিত করা হয়েছে। এছাড়া আরও ৫৮ হাজার রুম প্রস্তুত রাখা হবে।

ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আজ থেকে যে নতুন নিয়ম কার্যকর হতে যাচ্ছে তা কোয়ারেন্টাইন পদ্ধতিকে আরও জোরদার করবে এবং ভাইরাসের নতুন ধরনের বিরুদ্ধে সীমান্তে নিরাপত্তায় আরেকটি স্তর যোগ হবে।’ ১১ রাতের এই কোয়ারেন্টাইনে যাত্রীদের ১ হাজার ৭৫০ পাউন্ড বা ২ হাজার ৪২০ ডলার খরচ করতে হবে। এই প্যাকেজে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে পরিবহন, খাবার, থাকার জায়গা ও নিরাপত্তার খরচ।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close