খেলাধুলা

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ভোর ৪টায় মাঠে নামবে বাংলাদেশ

স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে আগ্রাসী ও ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে চায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে শনিবার ডুনেডিনের ওটাগো ইউনিভার্সিটিতে মাঠে নামবে টাইগাররা। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর ৪টায়।

নিউজিল্যান্ড সফরে প্রথমবারের মতো জয় পেতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ টাইগাররা স্বাগতিকদের উপর চাপ তৈরি করার লক্ষ্যে নির্ভিক ও আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে চায় বাংলাদেশ। অতীতে যা করে দেখাতে পারেনি, সেটাই এবার করে দেখাতে চায় বাংলাদেশ।

নিউজিল্যান্ডের মাটি কোনও জয় নেই বাংলাদেশের। ২৬টি ম্যাচ খেলে এখনো জয়হীন টাইগাররা। ১৩টি ওয়ানডে, ৯টি টেস্ট ও ৪টি টি-টোয়েন্টিতে হারে বাংলাদেশ। তবে এবারের চিত্রটি পুরোপুরি আলাদা। ওয়ানডে ক্রিকেটে দারুণ ক্রিকেট খেলছে বাংলাদেশ। তাই নিজেদের স্বপ্নকে আরও বড় করার ইচ্ছা তাদের।

বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়দের একজন কিউই নিয়মিত অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ও অভিজ্ঞ রস টেইলরের অনুপস্থিতি বাংলাদেশের প্রত্যাশা বাড়িয়ে দিয়েছে।

আজ অনুষ্ঠিত ম্যাচের আগের সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের উপরে চাপ তৈরি করতে চাইলে আমাদের ভয়ডরহীন ও আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে হবে, আক্রমণাত্মক খেলতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ক্রিকেটে আক্রমণাত্মক খেলার অর্থ এই নয়, আমাদের ১০ ওভারে ১০০ রান করতে হবে বা প্রথম পাঁচ ওভারে আমাদের পাঁচ উইকেট নিতে হবে। ক্রিকেট আক্রমণ মানে সর্বদা আমাদের ইতিবাচক থাকতে হবে। আমাদের অতীতের রেকর্ডটি এখানে ভালো না হওয়ায়, আমাদের ভিন্নভাবে চিন্তা করতে হবে। আমার কাছে যা গুরুত্বপূর্ণ তা হলো- আমাদের বোলিং বিভাগ। আমরা যদি বোলিংএ আক্রমণাত্মক হতে পারি তবে, এটি আমাদের জন্য সহায়ক হতে পারে। আমি আমাদের দলের নতুন পেসারদের নিয়ে খুব আশাবাদী। তারা নেটে কঠোর পরিশ্রম করেছে, আমি খুব উচ্ছ্বসিত। তারা যদি ভাল করতে পারে তবে আমাদের পক্ষে কাজ আরও সহজ হবে।’

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কখনওই জয় পায়নি বাংলাদেশ। তবে পরিসংখ্যান বলছে, অন্তত ওয়ানডে ক্রিকেটে প্রতিপক্ষের রিুদ্ধে তাদের সাফল্য রয়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ের পাশাপাশি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ডাবল-ফিগারের জয় রয়েছে বাংলাদেশের। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৫ ম্যাচে ১০টি জয় রয়েছে টাইগারদের। ১০টি জয়ের সবক’টি দেশের মাটিতে বা নিরপেক্ষ ভেন্যুতে। লড়াই হয়েছে ২২ বার। এর অর্থ- নিউজিল্যান্ডের বাইরে, কিউইদের জন্য কঠিন প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ।

এমন পরিসংখ্যান তামিম নিজেও জানেন, তাই প্রতিপক্ষকে নিয়ে ইতিবাচক তামিম। তিনি বলেন, ‘আগের চেয়ে আমাদের পেস অ্যাটাক অনেক ভালো। এটির একটি কারন, আমরা এখন আত্মবিশ্বাসী। নিউজিল্যান্ডে ভালো করতে, ভালো পেস আক্রমন দরকার। দ্বিতীয়ত বিদেশ সফরে যা জরুরি তা হলো- নিজের সামর্থ্যের উপর বিশ্বাস রাখা। আমাদের বিশ্বাস করতে হবে, আমরা প্রথম ম্যাচ থেকেই ভাল করতে পারি।

তামিম জানান, প্রস্তুতি খুবই ভালো হয়েছে। কিন্তু মূল বিষয় হলো- মাঠে তা প্রয়োগ করা। তিনি বলেন, ‘প্রস্তুতি এর চেয়েও ভাল হতে পারে। পরিকল্পনাও বেশ ভালো। আমরা কোয়ারেন্টাইন চলাকালীন ছোট-ছোট গ্রুপে অনুশীলন করেছি। এরপরে আমাদের পূর্ণ অনুশীলন সেশন হয়েছে। আমরা এর চেয়ে বেশি আশা করতে পারি না।’

তামিম আরও বলেন, ‘প্রথম ১০-১৫ ওভারে নিউজিল্যান্ডে ব্যাটিং করা খুবই কঠিন। এটি শুধুমাত্র বাংলাদেশের জন্য নয়, অন্যান্য দেশের ক্ষেত্রেও হয়ে থাকে। তাই ঐ সময়টায় আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।’

সম্ভাব্য একাদশ:

নিউজিল্যান্ড: মার্টিন গাপটিল, হেনরি নিকোলস, ডিভন কনওয়ে, টম ল্যাথাম (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), উইল ইয়ং, জেমস নিশাম, ড্যারিল মিচেল, মিচেল স্যান্টনার, টিম সাউদি, কাইল জেমিসন, ট্রেন্ট বোল্ট।

বাংলাদেশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, নাজমুল হোসাইন শান্ত, মোসাদ্দেক হোসেন/মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মেহেদী হাসান মীরাজ, মুস্তাফিজুর রহমান, হাসান মাহমুদ/তাসকিন আহমেদ।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close