সোনার বাংলাদেশ

হাসপাতাল থেকে ছুটি নিয়ে প্রাইভেট চেম্বারে রোগী দেখছেন ডাক্তার

সদর হাসপাতাল থেকে ছুটি নিয়ে প্রাইভেট চেম্বারে রোগী দেখছেন এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ চিকিৎসক নাক, কান, গলা রোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন ডা. এইচ এম এনামুল হকের বিরুদ্ধে। তার এমন কাজে ক্ষোভ জানিয়েছেন ভুক্তভোগী রোগীরা।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী শাহিন আহমেদ বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) দুপুরে এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি গত রোববার (৩ অক্টোবর) মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের নাক, কান, গলা রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দেখাতে যাই। কম্পাউন্ডার পাঁচ টাকা ফিস নিয়ে আমাকে টিকেট দেন। সেখানে আমরা ১৫-২০ জন্য ছিলাম। ঘন্টাখানিক অপেক্ষা করার পর কম্পাউন্ডার জানান চিকিৎসক নেই। পরে সবাই ঝগড়া করায়  কম্পাউন্ডার পাঁচ টাকা ফেরত দিয়ে দেন।

আরেক ভুক্তভোগী আলমগীর মিয়া বলেন, আমার ড্রাইভিং শিখার জন্য নাক, কান, গলা রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সনদ প্রয়োজন হয়। তাই আমি মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) যাই। সেখানে টিকেট কাউন্টার থেকে জানানো হয়- ওই চিকিৎসক ১৫ দিনের ছুটিতে আছেন, এ বিষয়ে হাসপাতালে অন্য কোনোও চিকিৎসকও নেই। পরে জানতে পারলাম ডা. এইচ এম এনামুল হক শহরের হেলথ এইড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগী দেখেন। সেখানে গিয়ে ৫০০ টাকা ভিজিট দিয়ে তাঁকে দেখাই। তিনি চেকআপ করে সনদ দিয়ে দেন।

হেলথ এইড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের রিসিপশনিস্ট বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) এ প্রতিবেদককে বলেন- ‌স্যার হাসপাতালে রোগী দেখেন না, ছুটিতে আছেন। আমাদের এখানে ৫-৬ দিন ধরে রোগী দেখছেন।’

বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) বেলা ৩ টায় ডা. এইচ এম এনামুল হকের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলে, অপরপ্রান্ত থেকে কেউ ফোন রিসিভ করেননি।

ছুটির বিষয়ে জানতে চাইলে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. হুমায়ুন কবির বলেন, ‌ডা. এইচ এম এনামুল হক ১৫ দিনের ছুটিতে ছিলেন। উনার সাথে কথা হয়েছে, বলেছি এটা যেন ভবিষ্যতে না হয়। তাকে বলেছি আমরা ছুটি দেই প্রয়োজনে, এগুলো উনার সুনামের সাথে যায় না। তিনি শনিবার (৯ অক্টোবর) থেকে অফিসিয়ালি হাসপাতালে রোগী দেখবেন।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close