আমাদের কমিউনিটি

যুক্তরাজ্যে হিন্দু সংগঠনগুলোর বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ

বাংলাদেশ হিন্দু এসোসিয়েশন ইউকের উদ্যোগে বুধবার, ২৭শে অক্টোবর সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৪টা অবধি বৃটিশ পার্লামেন্ট ও বিবিসি হেড কোয়ার্টারের সম্মুখে প্রায় হাজারো লোকের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশ।

যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে প্রথমবারের মত বাঙালী হিন্দু সম্প্রদায়ের এই বিশাল সমাবেশে বিভিন্ন শহর থেকে হিন্দু সংগঠনের সদস্যবৃন্দ সপরিবারে, সবান্ধব অংশগ্রহণ করেন। বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে বৃটেনে বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের শিশু কিশোর, যুবক যুবতীদের স্বতস্ফুর্তভাবে অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মত।

বাংলাদেশে হিন্দুদের সর্ববৃহৎ উৎসব দুর্গাপূজা চলাকালীন কুচক্রিমহল পরিকল্পিতভাবে কোরান অবমাননার নাটক সাজিয়ে কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে  হিন্দুদের উপর অত্যাচার, নির্যাতন, ধর্ষণ, হত্যা, মন্দির ভাঙ্গা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে লুটপাট, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগসহ ধ্বংসাত্বক কার্যকলাপ সপ্তাহব্যাপী অব্যাহত রাখে। অত্যন্ত দু:খজনক যে স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ সময়োপযোগী যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে এইসব অমানবিক কার্যকলাপ ও অত্যাচারের ঘটনার সাথে জড়িত দুষ্কৃতিকারী ও ইন্ধনদাতাদের সনাক্তকরণ ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা এবং এসব ঘটনার শিকার লোকজনকে পূর্ণাঙ্গ ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানান। একই সাথে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন ও যুক্তরাজ্য সরকারের হস্তক্ষেপও তারা কামনা করেন। এই ব্যাপারে ব্রিটিশ এমপিদেরকে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

সমাবেশের সার্বিক পরিচালনায় ছিলেন বাংলাদেশ হিন্দু এসোসিয়েশনের সভাপতি প্রশান্ত দত্ত পুরকায়স্থ বিইএম। সহযোগিতায় ছিলেন বিএইচএ ইয়োথ ফোরামের অমিত দেব, বিপ্লব দত্ত, হিমানীশ গোস্বামী, রাজ দাশ ও বিভিন্ন সংগঠনের  সেচ্ছাসেবকেরা। অংশগ্রহণকারী সংগঠনগুলো হচ্ছে:

সনাতন এসোসিয়েশন, বিএইচএ ইয়োথ ফোরাম, ইউনাইটেড হিন্দু কালচারাল সোসাইটি (ব্রাডফোর্ড), ব্রাডফোর্ড বেঙ্গলী হি ন্দুসোসাইটি, অগ্রজ্যোতি সংঘ (হাইড), শ্রী শ্রী বাবা লোকনাথ ভক্ত পরিষদ, ওম শান্তি এসোসিয়েশন, ইউরোপিয়ান হিন্দু ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন, মধুরিমা আর্টস্ ইউকে, সরস্বতী কালচারাল অর্গানাইজেশন (বার্মিংহাম), গৌরী চৌধুরীর সুরালয়, সেক্যুলার বাংলাদেশ মুভমেন্ট ইউকে, সি পি আর এম বি, ইউনাইটেড হিন্দু কালচারাল এসোসিয়েশন, হিন্দু এইড ইউ কে, নর্থ লন্ডন প্রভাতী সংঘ, ইউকে হিন্দু ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন, বাংগালী হিন্দু আদর্শ সমিতি ইউকে, মার্সি সাইড হিন্দু বাঙ্গালী এসোসিয়েশন ( লিভারপুল), এসবিএলএ ইউকে ও ওয়েস্ট লন্ডন সনাতন এসোসিয়েশন।

উপরোক্ত সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দ ও উপস্থিত মানবাধিকার কর্মীবৃন্দ তাদের বক্তব্যে বাংলাদেশে চলমান সহিংসতার তীব্র নিন্দা জানিয়ে দুষ্কৃতিকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন।

উল্লেখ্য যে বৃটিশ পার্লামেন্টের সদস্য বীরেন্দ্র শর্মা বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত হয়ে বিক্ষোভকারীদের সাথে সহমত প্রকাশ করেন ও পার্লামেন্টের অন্যান্য সদস্যদের অবহিত করার পরামর্শ দেন। তিনি আরো জানান যে এই ব্যাপারে সচেতন পার্লামেন্ট সদস্যরা  ‘আর্লী ডে মোশন’ উত্থাপন করেছেন। ইতিমধ্যে স্টিফেন টিমস্ এমপি ও রোশনারা আলী এমপি সহ ২০ জন এম পি এই মোশন প্রস্তাবে স্বাক্ষর করেছেন।

পার্লামেন্ট স্কোয়ারে সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল সহকারে অংশগ্রহণকারীরা, প্লেকার্ড নিয়ে দীর্ঘ দুই মাইল পদযাত্রা করে বিবিসি’ প্রধান কার্যালয়ের সম্মুখে অবস্থান ও বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। তারা সোচ্চার শ্লোগানে বাংলাদেশে ধারাবাহিকভাবে চলে আসা সাম্প্রদায়িক নির্যাতনের সংবাদ প্রচারে বিবিসির নীরবতায় অসন্তোষ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এজন্যে বিক্ষোভে অংশগ্রণকারী সদস্যরা বক্তৃতা ও শ্লোগানে বিবিসিকে বাংলাদেশে চলমান সহিংসতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের উপর প্রতিবেদন প্রচারের দাবী জানান। বিক্ষোভকারীদের দাবীতে বিবিসির একজন কর্মকর্তা এসে  প্রশান্ত দত্ত পুরকায়স্থ ও  অমিত দেবের কাছ থেকে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। বিবিসি কর্মকর্তার আশ্বাসের প্রক্ষিতে দিনব্যাপী বিক্ষোভের সমাপ্তি ঘটে।

উল্লেখ্য বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী গৌরী চৌধুরীর নেতৃত্বে জাগরণের গান ও ড: সুদীপ চক্রবর্তীর পরিচালনায় বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্টী ইউকে পথনাটক “তোল আওয়াজ” এর পরিবেশনা ছিল দর্শনার্থীদের বিশেষ আকর্ষণ।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close