সমগ্র বিশ্ব

একজন থেকে অন্যজনের দেহে দ্রুত ওমিক্রন পৌঁছে যেতে পারে

ডেল্টার পর করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন নিয়ে সারা বিশ্বেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। কারণ, অত্যন্তসংক্রামক। ইতোমধ্যে বাংলাদেশেও ওমিক্রনে আক্রান্ত ৭ জনের খবর মিলেছে। ওমিক্রন নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার আমরি হাসপাতালের বিশিষ্ট মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. রুদ্রজিৎ পাল সেখানকার সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ওমিক্রন নিয়ে গবেষণা চলছে। জানা যাচ্ছে, এই ভাইরাসের স্পাইক প্রোটিনে ঘটেছে মিউটেশন।

তিনি বলেছেন,স্পাইক প্রোটিনে এই বদলের ফলে ওমিক্রন হয়ে উঠেছে অত্যন্ত সংক্রামক। ওমিক্রনে আক্রান্তদের ফুসফুসে কি ধরনের আক্রমন করে এনিয়ে ডা. পাল বলেন, যতদূর জানা যাচ্ছে, ওমিক্রন খুব সংক্রামক হলেও মারাত্মক রূপনেয় না। দক্ষিণ আফ্রিকায় এ বিষয়টি সামনে উঠে এসেছে, বেশিরভাগ মৃদু উপসর্গ।

অপর প্রশ্নে ডা. পাল বলেন, ‘না, এভাবে বলা যাবে না। করোনা হলো রেসপিরেটরি ভাইরাস। অর্থাৎ মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হলে সমস্যা দেখা দিতে পারে শ্বসনতন্ত্রে। ওমিক্রনও কোভিড ১৯-এরই রূপ।ফলে এর থেকেও ফুসফুস আক্রান্ত হতে পারে। তখন শ্বাসকষ্ট দেখা দিতে পারে, কমতে পারে শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা।

নিউমোনিয়া সর্ম্পকে ডা.পাল বলেন, নিউমোনিয়া হলো ফুসফুসের মারাত্মক সংক্রমণ। তাও ব্যাকটেরিয়াল নিউমোনিয়া আমাদের দুটি ফুসফুসের মধ্যে একটিকে আক্রান্ত করে। কিন্তু ভাইরাস সংক্রমণের কারণে নিউমোনিয়া হওয়া খুবই খারাপ। এক্ষেত্রে দুটি ফুসফুসেই সমস্যা ছড়িয়ে যায়। রোগীর অবস্থার দ্রুত অবনতি হয়। কোভিড নিউমোনিয়ার ক্ষেত্রেও ঘটেছে এই সমস্যাই। তাই এত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। আর ওমিক্রন কোভিড ভাইরাস হওয়ায় এই ঘটনা ওমিক্রন আক্রান্তের সঙ্গেও ঘটতে পারে। তাই সবাধান থাকুন।

সতর্কতা সর্ম্পকে তিনি বলেন,এক্ষেত্রে মানুষের মধ্যে ফিরিয়ে আনতে হবে করোনাবিধি। করোনার নিয়ম মেনে এ সমস্যার সমাধান করা যাবে। মাস্ক পরুন, হাত ধুয়ে নিন, স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন। পাশাপাশি শারীরিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। ভিড়ে যাবেন না। তথ্য সূত্র এই সময়।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আরও দেখুন...

Close
Close